সোনাডাঙ্গা কেন্দ্রে দুর্যোগ ও নারী অধিকার বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত

20150525_105805

বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ এডুকেশন সোসাইটি (বিএফইএস) কর্তৃক পরিচালিত সোনাডাঙ্গা আইসিটি অ্যান্ড কমিউনিটি ক্লাইমেট কেযার সেন্টারের উদ্যোগে ২৫ মে ২০১৫ইং তারিখ সকাল ৯টায় সোনাডাঙ্গা আদর্শ পল্লীতে দুর্যোগ ও নারী অধিকার বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন মিনারা বেগম। সভায় এলাকার ২৮জন নারী সদস্য ও কিশোরীরা অংশগ্রহণ করেন। সভায় সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন সোনাডাঙ্গা কেন্দ্রের কেন্দ্র ব্যবস্থাপক দীপক ব্যানার্জী। রিসোর্স পারসন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সোনাডাঙ্গা থানা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সদস্য ও নারী নেত্রী নিলুফা বেগম।

কেন্দ্র ব্যবস্থাপক সভায় অংশগ্রহণকারী সদস্যদের সাথে রিসোর্স পারসনকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে বলেন, আজকের আলোচ্য বিষয় থেকে আপনারা বুঝতে পারছেন দুর্যোগের সাথে নারীদের একটি বিশেষ পরিচিতি আছে। দুর্যোগের সময় একজন পুরুষ তার ইচ্ছামত জায়গায় গিয়ে আশ্রয় নিতে পারে কিন্তু একজন নারী সে সুযোগ পায় না। নারী অধিকার একটি প্রচলিত শব্দ। দুর্যোগে নারী অধিকার অর্থাৎ দুর্যোগের সময় একজন নারী কি কি অধিকার পাবে সেসব বিষয়ে আজকের সভায় আলোচনা হবে।

রিসোর্স পারসন নিলুফা বেগম জানান, কিছুদিন আগে তাঁর স্বামী মারা গেছেন। মানসিকভাবে তিনি প্রস্তুত ছিলেন না, তারপরও এলাকার স্বার্থে বিশেষ করে নারীদের স্বার্থে তিনি সভায় এসেছেন।

তিনি বলেন, আজ আমরা যেখানে সভা করছি এখানে ছিল ময়ুর নদী। ময়ুর নদী ভরাট হয়ে গেছে। খুলনা শহরের ময়লা পানি এখন নদীতে গিয়ে পড়ে ফলে নদীর পানিতে গরুও গোসল করানো যায় না। এভাবেই তো আমরা দুর্যোগ ডেকে আনছি। বৃষ্টি হলে আমাদের এলাকা তলিয়ে যায়। পানি সরতে পারে না। দুর্যোগ মানে তো শুধু ঝড় না। জলাবদ্ধতাও একধরণের দুর্যোগ। নারী অধিকার যেমন ভোটদানের অধিকার, অফিস-আদালতে একসাথে কাজকর্ম করার অধিকার, কাজের বিনিময়ে ন্যায্য বেতন ও অন্যান্য সুবিধাদি পাবার অধিকার, সম্পত্তি লাভের অধিকার, শিক্ষার্জনের অধিকার ইত্যাদি। বর্তমান সরকার নারীর অধিকার রক্ষায় অনেক কাজ করছে।

এসময় তিনি আরও বলেন, দুর্যোগের সময় একজন নারী ও কিশোরীরা যে আশ্রয় কেন্দ্রে যাবে সে জায়গা কতটা নিরাপদ তা আগেই দেখতে হবে। একাজটা ইয়ুথ গ্রুপের সদস্যরা করবে। আমাদের পাশেই বাসস্ট্যান্ড কিন্তু সেখানে নারীদের জন্য নিরাপদ নয়। দুর্যোগের সময় আমরা মহিলা কমপ্লেক্স ও যুব কেন্দ্রে যেতে পারি। এই জায়গাগুলো নিরাপদ। নারীদের আশ্রয় কেন্দ্রে আগে পাঠাতে হবে। এর মধ্যে আবার অন্ত:সত্তা নারীদের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে। এছাড়া বয়স্ক ও শিশুদের প্রতিও দৃষ্টি রাখতে হবে। আমরা যদি এসব কাজ সঠিকভাবে করি তাহলেই নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে। সত্যিকার অর্থেই একটা ভাল কাজ আপনারা করছেন। বিশেষ করে ইয়ুথ গ্রুপ গঠন করে। দুর্যোগে এদেরই দায়িত্ব বেশি থাকবে। তিনি আয়োজকদের ও অংশগ্রহণকারীদের ধন্যবাদ জানিয়ে তার বক্তব্য শেষ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে মিনারা বেগম বলেন যে, দুর্যোগে আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। কার কি দায়িত্ব ভালভাবে বুঝে নিতে হবে। তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করে ও ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।