ইছাখালী কেন্দ্রে দূর্যোগ ও নারী অধিকার বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত

Pic-Woman

বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ এডুকেশন সোসাইটি (বিএফইএস) কর্তৃক পরিচালিত ইছাখালী আইসিটি এন্ড কমিউনিটি ক্লাইমেট কেয়ার সেন্টার এর উদ্যোগে ২৬ মে ২০১৫ ইং বুধবার সকাল ১১টায় দূর্যোগ ও নারী অধিকার বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন মনোয়ারা বেগম। এতে রিসোর্স পারসন হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রাঙ্গুনিয়া উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সোনিয়া শফি। সভায় প্রায় ৩১ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সভার শুরুতে ট্রেনিং সুপারভাইজার উপস্থিত সকলকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে রির্সোস পারসনকে পরিচয় করিয়ে দেন এবং রির্সোস পারসনকে বক্তব্য রাখার আহবান জানান।

রিসোর্স পারসন বলেন আপনারা কি জানেন নারী অধিকার কি? উপস্থিত সকলে তখন জানে না বলে জানায়। নারী অধিকার হলো নারী প্রথমে মানুষ হিসাবে পরিবারে, সমাজে ও রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে সকল ক্ষেত্রে সম্মান ও মর্যাদার সমান অধিকার ভোগ করবে। মানুষ হিসাবে নারী স্বাধীন নয়। একই সাথে নারী নীরবে যে কাজ করছে তার সঠিক মূল্যায়ন করাও জরুরী। তার অধিকার প্রতিনিয়ত নিয়ন্ত্রিত হয়। বাংলাদেশের নারী অধিকার পারিবারিক আইনের বিধান অনুযায়ী বিদ্যমান নারীর অধিকার ও অবস্থান বিষয়ে আলোকপাত করেছেন। এছাড়া মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ ১৯৬১, পারিবারিক আদালত অধ্যাদেশ ১৯৮৫, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০, যৌতুক নিরোধ আইন ১৯৮০, এসিড অপরাধ নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০২ সম্পর্কেও সংক্ষিপ্তভাবে আলোচনা করা হয়েছে। এ সকল আইনে নারীর প্রতি সহিংস আচরণ করা হলে নারী আইনগতভাবে কী প্রতিকার পেতে পারে সে সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। বিবাহ, তালাক, বিশেষ বিবাহ আইন, বহুবিবাহ, অভিভাবকত্ব, দেনমোহর, সম্পত্তিতে নারীর অধিকার ও দত্তক গ্রহণ ইত্যাদি বিষয়ে বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে নারীর অবস্থান সম্পর্কে একটি তুলনামূলক ধারণা লাভ করতে সমর্থ হবেন।

দূর্যোগ নিয়ে রির্সোস পারসন বলেন বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগকালীন সময়ে নারী এবং শিশু বিশেষ করে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে থাকে। বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ি অঞ্চলে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের কারণে যেকোন সময় পাহাড় ধসে পড়ার আশংকা থাকে। তাই বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ির নিচে বসবাসরত সকলকে নিরাপদ আশ্রয় গ্রহন করার এবং দূর্যোগকালীন সময়ে নারীদেরকে বেশী সজাগ থাকার আহবান জানান।

সেন্টার ম্যানেজার বলেন পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারী ও শিশুরা সমাজ ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন স্তরে নানাভাবে অত্যাচার, বৈষম্য এবং নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এরকম নির্যাতনের মাত্রা বেড়েই চলেছে। পুরুষতান্ত্রিক সমাজে প্রথাগত সামাজিক বিচারে যেন নারীরা বৈষম্যের শিকার না হয় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। বৈষম্যের কারণে নারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হলে সেটা সমাজের ক্ষতি। তাই নারীর অধিকার সুরক্ষায় পুরুষের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আমাদের দেশে দিন দিন নারী নির্যাতন বাড়ছে। এর থেকে পরিত্রানের উপায় হলো পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন এবং সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা।

সভাপতির বক্তব্যে মনোয়ারা বেগম বলেন আজকের এই সভা অত্যন্ত ছোট্ট পরিসরে হলেও এই সভার মাধ্যমে আমরা জানতে পারলাম কিভাবে একজন নারী তার অধিকার আদায় করতে হয়। পরিশেষে তিনি বিএফইএস কর্তৃপক্ষ ও উপস্থিত সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে সভা সমাপ্তি ঘোষণা করেন।